Home   |   About   |   Terms   |   Contact    
A platform for writers
 

ব্রজলাল

-হরপ্রসাদ সরকার

All Pages   ◍    1    (2)     3    4    5    6    7    ...





◕ পৃথিবীর বিভিন্ন সভ্যতার রোমাঞ্চকর কথা Details..

◕ Send your story to RiyaButu.com and get ₹ 500/- Details..

◕ Bengali Story writing competition. Details..


এক রাজ্যের এক শহরের কোনে এক মিঠায়ের দোকান ছিল। ব্রজলাল আর কেশবলাল মিলে ঐ মিষ্টি দোকান চালাত। মিষ্টির গুনাগুণ ছিল ভাল। তাই দূর দূর থেকে লোক তাদের ওখানে মিষ্টির জন্য আসত। অনেক টাকার কেনা বেচা হত। রোজকার মিষ্টি রোজই শেষ হয়ে যেত। তাদের দোকানের নাম দূর দূর পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়ল।
এক সময় এক বিশেষ কাজে ছ’মাসের জন্য কেশবলালকে পাশের শহরে চলে যেতে হল। কেশবলাল চলে যাবার কয়েকদিন পরের ঘটনা।
একদিন ব্রজলাল তার এক খদ্দেরের মুখে শুনতে পেলে যে রাজ্য ব্যবসা বাণিজ্যের দিন খুব খারাপ আসছে , খুব খারাপ। এমন এমন সব নতুন আদেশ আসছে যে ব্যবসা আর করা যাবে না। ঐ খদ্দের কেন এমন বলল তা সেইই জানে। কিন্তু ব্রজলালের মনে তা ঘর করে গেল। সে মনে মনে ভাবতে লাগল যে হয়তো ঠিকই খারাপ দিন আসছে। তাই সে মন মরা থাকতে লাগল।
আগে সে ৫০ সের দুধের মিষ্টি বানাত। এখন ৪০ সের দুধের মিষ্টি বানায়। কারণ তার মনে ভয় যদি তার মিষ্টি বিক্রি না হয়। দেশে মন্দী চলছে যে। এমন করে করে তার মিষ্টির গুন ও কম হতে লাগল। পরিস্থিতি এমন হল যে এখন ব্রজলাল ৫ সের দুধের মিষ্টি বানায় তাও বিক্রি হয় না। সে ভাবতে লাগল ঠিকই দেশে ভীষণ মন্দী চলছে। তাই তার মিষ্টি আর বিক্রি হচ্ছে না। সে সব সময় একদম মন মরা থাকতে লাগল।
এমনি এক দিনে কেশবলাল একদিন ফিরে এলো। সে তাদের দোকানের এই করুন অবস্থা দেখে খুব দুঃখ পেল। সে ব্রজলালকে তার কারণ জিজ্ঞাস করল। ব্রজলাল তাকে সব খুলে বলল আর বলল যে সত্যি দেশে খুব মন্দী পড়েছে। ব্যবসা আর করা যাবে না। কেশবলাল সব বুঝতে পারল।
সে হাসতে হাসতে তার ভাইকে বলল “তুমি সত্যি বলেছ দাদা, মন্দী তো হয়েছিল। কিন্তু মন্দী গত মাসেই চলেগেছে। এখন চারিদিকে আবার নতুন ভাবে সবাই ব্যবসা বাণিজ্য শুরু করছে। ব্যবসার দিন যে আবার ফিরে এসেছে দাদা।”
ব্রজলাল প্রথমে বিশ্বাস করতে পারেনি। কিন্তু ভাই মিথ্যা বলবে কেন ? তাই সে ভাই এর কথা বিশ্বাস করল। তার মনে আবার ধীরে ধীরে নতুন আশা ঘর করতে লাগল। মনে নতুন সাহস আসতে লাগল। মুখে হাসি ফিরে এলো। সে ভাবতে শুরু করল “এবার আবার আমাদের ব্যবসা ভাল চলবে। খুব মিষ্টি বিক্রি হবে।”
আর ধীরে ধীরে তাইই হতে লাগল। আবার তাদের দোকানে গ্রাহক আসতে লাগল। ধীরে ধীরে বিক্রির পরিমাণ ও বাড়তে লাগল। দেখতে দেখতেই কিছু দিনের মধ্যে তাদের মিষ্টির পরিমাণ আবার ৫০ সেরের উপর উঠে গেল। একদিন হঠাৎ ব্রজলাল তার ভাইকে প্রশ্ন করল “কি রে , মন্দী কি আবার আসবে ?”
কেশবলাল হাসতে হাসতে দাদাকে বলল “ দাদা মন্দী, কখনোই কিছু ছিল না। তুমি অন্যের কথাতে ভাবতে শুরু করে ছিলে যে মন্দী এসেছে। আর তোমার মনের ভাবনা তোমার কাজের ও দেখা দিল। বিক্রি কমতে লাগল। আবার যেই তুমি ভাবতে শুরু করলে যে মন্দী চলে গেছে, অমনি তোমার কাজে তোমার মনের ভাবনা দেখা দিতে লাগল। আর বিক্রি বাড়তে লাগল।” ব্রজলাল- তবে কিভাবে বুঝব যে মন্দী আসছে ?
কেশবলাল – সোজা হিসাব। যেদিন দেখবে যে দিনের পর দিন তোমার ১৬ আনার মিষ্টি কেউ ১ আনা দিয়ে ও কিনছে না। তখন ভাববে যে কোথাও কোন গরবর আছে। তখন সাবধান হতে থাক। ততদিন আনন্দ আর ব্যবসা। দুই ভাই একসাথে হেসে উঠল।।
Top of the page

◕ পৃথিবীর বিভিন্ন সভ্যতার রোমাঞ্চকর কথা Details..

◕ Send your story to RiyaButu.com and get ₹ 500/- Details..

◕ Bengali Story writing competition. Details..



All Pages     1    (2)     3    4    5    6    7    ...