Home   |   About   |   Terms   |   Contact    
A platform for writers
 

ত্রিপুরার কাষ্টমারি ল

Tripura Customary Law

◎ All Articles On Tripura     ◎ All Other Articles







This article is regarding the Tripura Customary Law.
Last updated on: .
Language: Bengali.




ত্রিপুরার কাষ্টমারি ল

১লা সেপ্টেম্বর ২০১৭, শুক্রবার ত্রিপুরা উপজাতি এলাকা স্বশাসিত জেলা পরিষদের বৈঠকে জমাতিয়া সমাজের কাষ্টমারি ল বা প্রথাগত আইনকে আইনি বৈধতা প্রদান করে একটি বিল পাশ করা হয়। শুধু জমাতিয়া নহে, ত্রিপুরায় উপজাতিদের যে ১৯টি দফা আছে তাদের প্রত্যেকেরই পৃথক পৃথক প্রথাগত আইন আছে। বহু যুগ ধরে এই প্রথাগত আইনের উপর ভিত্তি করেই এই সমাজ গুলি শৃঙ্খলা রক্ষা করে আসছে। ত্রিপুরার রাজ আমলে মহারাজের আইন চালু থাকলেও সমাজের নিয়ম শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে এই প্রথাগত আইনই মুখ্য ভূমিকা পালন করত। সমাজপতিরাই এ ক্ষেত্রে বিচারকের ভূমিকা পালন করত। স্বাধীন ভারতে ত্রিপুরার অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর সিআরপিসি, আইপিসি বলবত হয়। সে সময় হতেই এই প্রথাগত আইনে একটি প্রশ্ন চিহ্ন লেগে যায়। দেশের সংসদ অনুমোদিত আইন ও এই প্রথাগত আইনের মধ্যে একটি বিরোধাভাস দেখা দেয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই আইন একেবারে পরস্পরবিরোধী। ফলে সে ক্ষেত্রে কোনটি বৈধ সে প্রশ্ন বড় হয়ে উঠে। মুল সমস্যা দেখা দেয় ১৯৮২ সালে। ত্রিপুরার পবিত্র গরিয়া বাবার স্বর্ণ অলঙ্কার চুরি দায়ে তখন চার জন দোষী সাব্যস্ত হয়। জমাতিয়া হদা তাদের প্রথাগত আইনে বিচার করে এই চারজনকে জ্যান্ত কবর দেবার শাস্তি শোনান। তা যথা সময়ে কার্যকর ও করা হয়। সে ঘটনা জানাজানি হতেই রাজ্যে সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। তখন হতেই সংশোধিত আকারে ট্রাইবেল কাষ্টমারি ল-এর আইনি বৈধতা প্রদানের বিষয়টি লইয়া নানান প্রয়াস শুরু হয়। অনেক সমাজের প্রচলিত বিচার ব্যবস্থায় এমন কিছু সাজা থেকে থাকে যা অত্যন্ত নির্মম এবং আধুনিক সমাজে কখনই গ্রহণযোগ্য নয়। ধীরে ধীরে এই প্রথাগত আইনের বিতর্কিত অমানবিক এবং নির্মম দিক গুলিকে বাদ দিয়ে সামনে এগোনোর চেষ্টা করা হয়। উদাহরণ স্বরূপ, এই পথে অগ্রসর হয়ে মিজোরাম যথেষ্ট সফলতা লাভ করেছে।


◕ This page has been viewed 435 times.



Top of the page