Home   |   About   |   Terms   |   Book Rent   |   Contact    
A platform for writers

কল্পলোক

বাংলা গল্প

-------- বিজ্ঞপ্তি ----------
◕ প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা - সেপ্টেম্বর ২০২২, Details..
--------------------------



All Bengali Stories    155    156    157    158    (159)     160   

কল্পলোক
লেখক - দিগন্ত পাল, দানেশ শেখ লেন, হাওড়া


## কল্পলোক

লেখক - দিগন্ত পাল, দানেশ শেখ লেন, হাওড়া

#
এক ভীষণ ঝড়ের রাত। একটি বত্রিশ-তেত্রিশ বছর বয়সী মেয়ে বন্ধ ঘরে রিভলভার হাতে! রিভলভারের মুখ ছুঁয়ে রয়েছে মাথা আর তার তর্জনী রিভলভারের ট্রিগারে! দুই চোখের অশ্রু-ক্ষরণে সিক্ত তার অভিব্যক্তি-হীন মুখমণ্ডল।

#
কয়েক বছর আগে ...
চন্দ্রিমা একটি রিসার্চ ইন্সটিটিউটে একজন থিয়োরিস্ট। সে স্বভাবে খুব নিরীহ, একেবারেই মিশুকে নয়। কয়েক বছর হল মা-বাবা গত হয়েছেন। অসামাজিক না হলেও সে আলাদা থাকতেই বেশী পছন্দ করে। তবে একজনের ব্যাপারেই সে আবেগপ্রবণ –। সেদিন ইন্সটিটিউটে থাকাকালীন চন্দ্রিমা ফোনে কল্ পেল। কল্ রিসিভ করে সে নিচু স্বরে বলল, "বলো.."

ফোনে এক পুরুষ কণ্ঠ বলে উঠল, "কিগো ইন্সটিটিউট থেকে বেরিয়েছো? তাড়াতাড়ি আসবে বললে! লাঞ্চ রেডি। আমার খিদে পেয়ে গেছে..."

চন্দ্রিমা বেশ বিচলিত হয়ে বলল, "এ..এই তো বেরোচ্ছি। শোনো, তোমার সাথে একটা কথা আছে।"

পুরুষ-কণ্ঠটি বলে উঠল, "ঐ তিনটে শব্দ?"

চন্দ্রিমা বলল, "ধ্যাত্, খালি বাজে কথা! বিয়ে হয়েছে দু-বছর হতে চলল, এখনও আদিখ্যেতা!!"

পুরুষ-কণ্ঠটি কৌতুক করে বলল, "যা-ব্বাবা! একটা ছেলে তার সুন্দরী বউয়ের মুখে ঐ তিনটে ম্যাজিকাল ওয়ার্ড শুনতে চাইতে পারে না? সেই কবে থেকে শুনতে চাইছি! যাই হোক, আগে এসো..."

চন্দ্রিমা বাড়িতে ঢুকে দেখল তার স্বামী ড্রইং রুমে পিছন ফিরে দাঁড়িয়ে ফোনে কথা বলছে, "শুধাংশু বলছি..."

চন্দ্রিমা সোফায় ভ্যানিটি ব্যাগটা রেখে পেছন থেকেই শুধাংশুকে জড়িয়ে ধরল। শুধাংশুও ফোনটা রেখে সামনে ফিরে দু'হাতে চন্দ্রিমাকে জড়িয়ে ধরে বলল, "চটপট ফ্রেশ হয়ে এসো। উফ! আবার পারফিউম ব্যবহার করেছ?"

শুধাংশুর বুকে চিবুক রেখে তার চোখের দিকে তাকিয়ে আধ-বোজা ঠোঁটে চন্দ্রিমা জিজ্ঞাসা করল, "কেন, গন্ধটা সুন্দর না?"

শুধাংশু কিঞ্চিৎ বিরক্তির সাথে বলল, "পারফিউমের গন্ধে তোমার গায়ের গন্ধ চাপা পড়ে যায়।"

লাঞ্চ খেতে-খেতে চন্দ্রিমা বেশ উৎফুল্ল হয়ে বলল, "জানো, কয়েকদিন হলো আমার মাথায় একটা থিয়োরি এসেছে!"

"শুনি!"

চন্দ্রিমা বলল, "আমাদের মস্তিষ্ক যে তিনটে স্পেশিয়াল ডায়মেনশন্ আর একটা টেম্পোরাল ডায়মেনশনের সাহায্যে জগৎ-কে বোঝে, সেই প্রত্যেকটা ডায়মেনশন আসলে এক একটা কমপ্লেক্স প্লেইন-র রিয়্যাল অ্যাক্সিস্।" চন্দ্রিমা শুধাংশুর ঠোঁটের কোণে হাসি দেখে বলল, "কি বুঝছেন মিস্টার ম্যাথেমেটিশিয়া?"

শুধাংশু হাসিমুখেই বলল, "তুমি বলতে চাইছ যে, আমাদের পরিচিত চারটে ডায়মেনশন্ হলো বস্তুত রিয়্যাল ডায়মেনশন্স, যেগুলোর প্রত্যেকটার জন্য একটা করে ইমাজিনারী ডায়মেনশন আছে। অর্থাৎ কমপ্লেক্স কোয়ান্টিটি-র যেমন একটা রিয়্যাল আর একটা ইমাজিনারী পার্ট থাকে, স্পেস-টাইম-ও চারটে রিয়্যাল ডায়মেনশন নিয়ে তৈরি একটা রিয়্যাল ইউনিভার্স ও চারটে ইমাজিনারী ডায়মেনশন্ নিয়ে তৈরি একটা ইমাজিনারী ইউনিভার্স-এ বিভক্ত!"

চন্দ্রিমার দু'চোখ চকচক করে উঠল। বলল, "কারেক্ট! আর কসমোলজি যাকে 'ডার্ক এনার্জি, বলে তা আসলে ইমাজিনারী বোসন কণাসমূহ, স্পেস-টাইম-এ যাদের গতিপথ এই ইমাজিনারী ইউনিভার্স-এ সীমাবদ্ধ। আবার 'ডার্ক ম্যাটার বলতে প্রকৃতপক্ষে ইমাজিনারী ফার্মিয়ন কণাগুলোকে বোঝায় যাদের গতিপথ সর্বদা ইমাজিনারী ইউনিভার্স-এর মধ্যেই থাকে। ফলে ঐ কণাগুলো রিয়্যাল ইউনিভার্স-র ফার্মিয়ন বা পদার্থ কণা এবং বোসন বা শক্তি কণাগুলোর সাথে ইন্টারাক্ট করে না, আমাদের পার্কটিকল্ ডিটেক্টর-এ ধরা পড়ে না। আবার নিউট্রিনো কণার গতিপথের অল্প অংশ আমাদের রিয়্যাল ইউনিভার্স-র মধ্যে পড়ে, তাই নিউট্রিনো আমাদের চেনা কণাগুলোর সাথে সামান্য ইন্টারাক্ট করে।"

#
বর্তমান সময় ...
চন্দ্রিমার দৃষ্টি চোখের জলে বারবার আবছা হয়ে আসছে। বাড়ির ড্রইং রুমের সোফায় উপবিষ্ট চন্দ্রিমার দৃষ্টি টেলিভিশনে চলতে থাকা নিউস্ চ্যানেল-এ ,"ইন্ডিয়ান ইন্সটিটিউট অফ পার্কটিকল্ ফিজিক্স-এ কর্মরতা বিজ্ঞানী চন্দ্রিমা দাসের প্রস্তাবিত 'ইমাজিনারী ইউনিভার্স' তত্ত্ব যখন ব্রহ্মাণ্ডকে বোঝার এক নতুন দৃষ্টিভঙ্গি দিয়েছে, তখনই চন্দ্রিমা দাসের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে রহস্যের ঘনঘটা! ডঃ চন্দ্রিমা মিডিয়াকে বারবার জানিয়েছেন, 'ইমাজিনারী ইউনিভার্স' তত্ত্বের গাণিতিক ভিত ওনার স্বামী শুধাংশু দাস তৈরি করেছেন, কিন্তু তথ্য-প্রমাণাদি নিশ্চিত করেছে যে বাস্তবে শুধাংশু দাসের কোন অস্তিত্বই নেই! সাইকিয়াট্রিস্টদের মতে ডঃ চন্দ্রিমা 'স্কিজোফ্রেনিক ডিসোশিয়েটিভ আইডেন্টিটি ডিসঅর্ডার' নামে এক জটিল মনরোগের শিকার, যে রোগে 'স্কিজোফ্রেনিয়া' ও 'ডিসোশিয়েটিভ আইডেন্টিটি ডিসঅর্ডার' উভয় রোগেরই লক্ষণ প্রকাশ পায়। ওনার মস্তিষ্ক কখনও চন্দ্রিমার ভূমিকায় থাকে আবার কখনও তা নিজেকে মানসিকভাবে পুরুষ ভাবতে শুরু করে ও শুধাংশু দাসের ভূমিকা নেয়। চন্দ্রিমার ভূমিকায় থাকার সময় সেই মস্তিষ্ক শুধাংশুকে কল্পনা করে তাকে নিজের স্বামী বলে ভেবে নেয়, আবার শুধাংশুর ভূমিকায় সে চন্দ্রিমা নামে কল্পিত নারীকে নিজের স্ত্রী বলে মেনে নেয়..."

চন্দ্রিমা ড্রইং রুম ছেড়ে বেডরুমে ঢুকে দরজা বন্ধ করল। ড্রয়ার থেকে একটা রিভলভার নিয়ে মাথায় ঠেকিয়ে অস্ফুট স্বরে তিনটে শব্দ উচ্চারণ করল, "আই লাভ ইউ!"
তারপরেই গুলির আওয়াজ।
( সমাপ্ত )


Next Bangla Story

All Bengali Stories    155    156    157    158    (159)     160   


## Disclaimer: RiyaButu.com is not responsible for any wrong facts presented in the Stories / Poems / Essay / Articles / Audios by the Writers. The opinion, facts, issues etc are fully personal to the respective Writers. RiyaButu.com is not responsibe for that. We are strongly against copyright violation. Also we do not support any kind of superstition / child marriage / violence / animal torture or any kind of addiction like smoking, alcohol etc. ##


◕ RiyaButu.com, এই Website টি সম্পর্কে আপনার কোনও মতামত কিংবা পরামর্শ, কিংবা প্রশ্ন থাকলে নির্দ্বিধায় আমাদের বলুন। যোগাযোগ:
E-mail: riyabutu.com@gmail.com / riyabutu5@gmail.com
Phone No: +91 8974870845
Whatsapp No: +91 6009890717