Home   |   About   |   Terms   |   Contact    
A platform for writers

ত্রিপুরার ইতিহাস
( পর্ব ৪)

Tripura History

◎ All Articles On Tripura     ◎ All Other Articles



ত্রিপুরার রাজসিংহাসনের ইতিকথা
.
ত্রিপুরার রাজসিংহাসনের ইতিকথা
ত্রিপুরার ইতিহাস
( পর্ব ৪)




◕ A platform for writers Details..

◕ Story writing competition. Details..


মহাভারতে আছে যে, মহারাজ যুধিষ্ঠিরের রাজসূয় যজ্ঞে ত্রিপুরার মহারাজ ত্রিলোচন অংশগ্রহণ করেছিলেন। মহারাজ যুধিষ্ঠির সন্তুষ্ট হয়ে, মহারাজ ত্রিলোচনকে একটি সিংহাসন উপহার দেন। প্রবাদ আছে যে, সুপ্রাচীন কাল থেকে ত্রিপুরার মহারাজারা সেই সিংহাসনে বসেই ত্রিপুরার রাজকার্য পরিচালনা করতেন। বর্তমান ত্রিপুরার রাজারা যে রাজসিংহাসনটি বসে রাজকার্য পরিচালনা করতেন সেটি ঐ সিংহাসনের প্রতিরূপ।

ত্রিপুরার ইতিহাস বলে যে, ত্রিপুরার জয়মাণিক্য এবং দ্বিতীয় বিজয়মাণিক্য খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে মারা গেলে স্বল্প সময়ের জন্য ত্রিপুরার সিংহাসন খালি হয়ে যায়। ঐ সময় বাংলার সিপেসালার সামসের গাজি এবং আবদুল রজফ কুমন্ত্রণা করে উদয়মাণিক্যের ভাতিজা বনমালী ঠাকুরকে লক্ষণমাণিক্য নামে ত্রিপুরাধিপতি করতে চেয়েছিলেন। যুবরাজ কৃষ্ণমণি এই খবর পেয়ে, প্রচণ্ড ক্ষোভে ত্রিপুরার প্রাচীন সিংহাসনটিকে ভেঙ্গে তার ধ্বংসাবশেষ নদীর জলে ভাসিয়ে দেন।

লক্ষণমাণিক্যকে বাঁশ এবং কাঠ নির্মিত সিংহাসনেই বসতে হয়েছিল। পরবর্তী কালে যুবরাজ কৃষ্ণমণি বাংলার নবাবের কাছে সমস্ত বৃত্তান্ত খুলে বললে, বাংলার নবাব সাক্ষী-প্রমাণ সপক্ষে ষড়যন্ত্রকারী সামসের গাজি এবং আবদুল রজফকে কামানের মুখে বেঁধে উড়িয়ে দেন। তিনি কৃষ্ণমণিকে ত্রিপুরার মহারাজ ঘোষণা করেন। ১৭৬০ খ্রীঃ ( ১ লা পৌষ, ১১৭০ ত্রিপুরাব্দ) যুবরাজ কৃষ্ণমণি, কৃষ্ণমাণিক্য নামে ত্রিপুরার রাজসিংহাসন লাভ করেন। রাজা হয়েই তিনি নিজের দ্বারা বিনষ্টকৃত সিংহাসন সাদৃশ্য একটি নতুন সিংহাসন প্রস্তুত করেন, যা আজও বর্তমান।
Next Part

◕ A platform for writers Details..

◕ Story writing competition. Details..


আগের পর্বগুলিঃ
১ম পর্ব     ২ য় পর্ব     ৩ য় পর্ব    

◕ This page has been viewed 395 times.