Home   |   About   |   Terms   |   Library   |   Contact    
A platform for writers

জেঠিমা

স্বরচিত ছোট গল্প প্রতিযোগিতা, নভেম্বর- ২০২২ একটি নির্বাচিত গল্প

-------- বিজ্ঞপ্তি ----------
■ 'স্বরচিত কবিতা প্রতিযোগিতা, ফেব্রুয়ারি - ২০২৩' Details
--------------------------



List of all Bengali Stories

জেঠিমা
লেখিকা - দেবিকা বসু, গাজিয়াবাদ, উত্তরপ্রদেশ
স্বরচিত ছোট গল্প প্রতিযোগিতা, নভেম্বর- ২০২২ একটি নির্বাচিত গল্প


## দুর্গাপুরে থাকতে অর্পণ সন্ধেবেলায় বাড়ি ফেরার কিছুক্ষণের মধ্যে জেঠিমা চায়ের কাপের সাথে জলখাবারের থালা গুছিয়ে ঘরে ঢুকতেন। ওদের গল্পের আসরে মধুপি'র নিজেকে মাঝেমধ্যেই বাড়তি মনে হত। বেশ কিছু সময় কথা বলার পরে জেঠিমার হুঁশ ফিরত। "না বাপু, অনেক কাজ পড়ে আছে। অপু, তুই যা বরং বৌমাকে নিয়ে একটু ঘুরে বেড়িয়ে আয়। আমি রাতের রান্নাটা সেরে রাখি।"

রাগে গা চিড়বিড়িয়ে উঠত মধুপি'র। বৌমার প্রতি অশেষ বদান্যতাও দেখানো হল। ঠারে-ঠোরে এটাও বলা হল, সংসারের কাজ সব তিনিই সামলান। শুধু কি তাই! খেয়ালখুশি মত সাজ-গোজের স্বাধীনতাও ছিল না। অর্পণই গুটিয়ে যেত, "জিন্স পরে বেরোলে জেঠিমার ভালো লাগবে না। কোথাও ঘুরতে গেলে ওসব পরো।"

কলকাতায় চলে আসার পরে নিরুদ্বেগ খুশিতে দিন কাটছে। অফিস থেকে সন্ধেবেলায় অর্পণ বাড়ি ফিরে আসার পরের সময়টা এখন শুধুই দুজনের।

সরকারি চাকরিটা পাওয়ার পরে অর্পণ জেদ ধরেছিল জেঠিমাকেও ওদের সঙ্গে থাকতে হবে। তিনি এসেও ছিলেন। সংসার গুছিয়ে দিয়ে ফিরে গেছেন। আর তাঁর পদধূলি পড়েনি এ বাড়িতে। মধুপিও নিশ্চিন্ত। মুশকিল হল এরপর থেকে। হপ্তা-শেষে অর্পণকে বাড়িতে যেতেই হবে। কি না, জেঠিমা একা আছেন! দোকান বাজার করে দিতে হবে।

মধুপি'র দিদি বলেছিল, "শক্ত হ এবার। তা বলে ঝগড়া করিস না বেশি। অন্য কোথাও ঘোরার প্ল্যান বানিয়ে মিষ্টি করে আবদার করবি। বলবি, পরের উইকে যেও। আস্তে-আস্তে দেখবি ও-টান আপনি কেটে যাবে।"

মধুপি দিদির কথা মতই চলছে। অর্পণ তেমন বায়না করে না আজকাল। তবে মাসে দু'বার বা অন্তত একবার জেঠিমার সঙ্গে দেখা করতে যাবেই। মধুপি'র যেতে অনিচ্ছা বুঝে ওকেও আর জোর করে না আগের মত। একাই চলে যায়।

গত সন্ধ্যায় চরম অশান্তি হল এই নিয়ে। সামনের রবিবার মধুপি'র দিদি ওদেরকে নিমন্ত্রণ করেছে। অর্পণের বাড়ি যাবার কথা ছিল। মধুপি তেড়ে-ফুঁড়ে উঠল, "এবারে না গেলে কি ক্ষতি হবে!! কিসের যে এত টান তোমার!! নিজের মা হলেও বুঝতাম। তোমাকে বোকা পেয়ে মাথায় হাত বুলিয়ে দিব্যি গুছিয়ে নিল। বাড়ির লোন শোধ করলে। সারা মাসের খাই-খরচ, ওষুধপত্র সব কিনে-কেটে দিচ্ছ, তবু বায়নাক্কার শেষ নেই!!"

অর্পণ ম্লান মুখে বসে রইল কিছুক্ষণ। "আচ্ছা যাব না।" শুনে খুশি হয়ে রান্না করতে গেল মধুপি। রাতে খাওয়াদাওয়ার পরে কাজকর্ম সেরে শুতে এসে দেখে, অর্পণ বিছানায় গা এলিয়ে চোখ বুঁজে শুয়ে। বুকটা ছ্যাৎ করে উঠেছিল। গাটা বেশ গরম দেখে প্যারাসিটামল খাইয়ে দিল একটা। অর্পণ ঘুমোলেও মধুপি ঘুমোতে পারেনি। কি এক তাড়নায় মনের ভেতরটা অস্থির হয়েছিল। ঠিক ভোর হবার আগে ক্লান্ত চোখদুটোয় একরাশ ঘুম নেমে আসে। জানলার কাঁচের সার্সি দিয়ে চোখে রোদ পড়তে ধড়ফড় করে উঠতে গেলে অর্পণ ওর হাত টেনে ধরে। মধুপি ওর হাতটা ধরে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে। আধশোয়া হয়ে অর্পণের চুলে বিলি কেটে দিতে-দিতে অভিমানে ভারি হল গলা, "মন না চাইলেও আমার কথা মেনে নাও কেন? মাঝে-মাঝে আমাকে তো একটু শাসন করতে পার..."

অর্পণের চার বছর বয়সে ওর বাবা-মা একসঙ্গে বাইক অ্যাক্সিডেন্টে মারা যান। দায়িত্ব কে নেবে ঐটুকু বাচ্চার! স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে সেই সময় অর্পণকে নিজের কাছে নিয়ে গেলেন ওর বাবার দূর-সম্পর্কের দাদা-বৌদি। ভগবান কখনো বড়ই নিষ্ঠুর, কখনো পরম করুণাময়। অর্পণকে পেয়ে নিঃসন্তান জ্যেঠু-জেঠিমার শূন্য সংসার ভরে উঠল। মণিহারী দোকানের আয় থেকে কায়ক্লেশে সংসার চলত। স্নেহ ভালবাসার প্রাচুর্য বাকি অভাব বুঝতে দেয়নি সেভাবে। অর্পণের ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ানোর খরচ জোটাতে বাড়িটা ব্যাংকের কাছে মর্টগেজ রেখেছিলেন জ্যেঠু। পরে চাকরি পেয়ে ছাড়িয়েছে অর্পণ। জ্যেঠু তা দেখে যেতে পারেননি। সবটুকুই তো জানে মধুপি। বিয়ের আগে থেকেই জানে। গতকাল গোটা রাত জেগে ভেবেছে। বরকে পুরোপুরি দখল করার লোভে কি করে যে ও এত হৃদয়হীনা হয়ে গেল! মধুপি পছন্দ করে না বোঝেন বলেই তো জেঠিমা এ বাড়িতে এসে থাকতে চান না।

অর্পণ মধুপি'র চুলগুলো ঘেঁটে এলোমেলো করে দিয়ে হাসিমুখে জানতে চায়, "রোববারের প্ল্যানটার কি হবে?"

মধুপি'র মুখে হাসি, চোখ ছলছলে। বলল, "বাড়ি যাব। জেঠিমাকে সঙ্গে নিয়ে ফিরব।"
( সমাপ্ত )


Next Story

List of all Bengali Stories


## Disclaimer: RiyaButu.com is not responsible for any wrong facts presented in the Stories / Poems / Essay / Articles / Audios by the Writers. The opinion, facts, issues etc are fully personal to the respective Writers. RiyaButu.com is not responsibe for that. We are strongly against copyright violation. Also we do not support any kind of superstition / child marriage / violence / animal torture or any kind of addiction like smoking, alcohol etc. ##


◕ RiyaButu.com, এই Website টি সম্পর্কে আপনার কোনও মতামত কিংবা পরামর্শ, কিংবা প্রশ্ন থাকলে নির্দ্বিধায় আমাদের বলুন। যোগাযোগ:
E-mail: riyabutu.com@gmail.com / riyabutu5@gmail.com
Phone No: +91 8974870845
Whatsapp No: +91 6009890717