Home   |   About   |   Terms   |   Book Rent   |   Contact    
A platform for writers

আদর্শ মানুষ হওয়া

বাংলা প্রবন্ধ

------ বিজ্ঞপ্তি ----------
# 'নগেন্দ্র সাহিত্য পুরস্কার' স্বরচিত গল্প লেখার প্রতিযোগিতা, মে -২০২২ Details..
# গপ প্রতিযোগিতা, জুন ২০২২ ( হাসির নতুন দিগন্ত ) Details..
--------------------------



All Bengali Essay    ( 1 )     2     3    

আদর্শ মানুষ হওয়া
বাংলা প্রবন্ধ
লেখক - পাভেল রহমান, বাবা: মিজানুর রহমান, মিরপুর, ঢাকা, বাংলাদেশ


## আদর্শ মানুষ হওয়া
আজ আমাদের আলোচ্য বিষয় এমন একটি বিষয় নিয়ে যা বর্তমানে দুর্লভ আর তা হল আদর্শ। আদর্শ কি - এ প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে এক মনীষীর একটি উক্তির মাধ্যমে। আর তিনি হলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তিনি বলেছেন, "যে আদর্শ অন্য আদর্শের প্রতি বিদ্বেষপরায়ণ, তাহা আদর্শ নহে।" অর্থাৎ সকল আদর্শের মধ্যে যে আদর্শ নিয়ে কোনও আদর্শের বিরোধ নেই, সেটিই আদর্শ।

ইসলাম ও সনাতনের মধ্যে অনেক বিরোধ আছে বিভিন্ন বিধানের ক্ষেত্রে। ইসলামের কিছু বিধান এমন আছে যা সনাতন ধর্মের বিরোধী। যেমন: মূর্তিপূজা ইসলামে নিষিদ্ধ, কিন্তু সনাতনে নয়। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা বলে থাকেন যে, আমরা প্রতিমার পূজো করি। তাদের যুক্তি এই যে, তারা মূর্তিকে ঈশ্বর সদৃশ ভেবে তার প্রতি ভক্তি নিবেদন করে।

ইসলামের বিধান অনুযায়ী, মূর্তি আরাধনা করা গুনাহ বা পাপ। অর্থাৎ ইসলাম ও সনাতন এক্ষেত্রে পরস্পর বিরোধী।

আবার সনাতনে পূত- ভক্তির কথা বলা হয়েছে, যার নাম 'অহেতুকী ভক্তি'। অহেতুকী ভক্তিতে কোনও ইচ্ছা লুকানো থাকে না। কিন্তু প্রচলিত ইসলামে অহেতুকী ভক্তির কোনও লক্ষণ নেই। প্রচলিত ইসলাম ব্যবস্থার মতে, সওয়াব লাভ বা পরকালে জান্নাত লাভের জন্য আল্লাহকে ডাকতে হবে। অর্থাৎ কিছু না কিছুর জন্যে তাকে ডাকতেই হবে - এটি অহেতুকী ভক্তি নয়। এরকম অনেক ক্ষেত্রে বিভিন্ন আদর্শ, বিভিন্ন আদর্শের বিরোধী।

খাটো পোশাক পরিধান করা, উলঙ্গ-প্রায় বস্ত্র পরা কিংবা আপাদমস্তক ঢাকা বস্ত্র পরিধান করা - এ সকল বিষয় নিয়ে বিভিন্ন বিধানের মধ্যে বৈসাদৃশ্য আছে। কোনও বিধান নারীদের বোরকা পরতে বলে, আবার কোনও সংস্কৃতির রীতিই হল উলঙ্গ-প্রায় পোশাক পরিধান করা। উহা আমাদের কাছে কুরুচিপূর্ণ হলেও অনেক সংস্কৃতিতে উহা সুরুচি-পূর্ণ। তবে মার্জিত ও সুশীল পোশাক পরিধান করা নিয়ে কোনও সংস্কৃতির মধ্যে বিরোধ নেই। মার্জিত থাকা, সকল কর্মে শালীনতা বজায় রাখা- এটা পাশ্চাত্যের সংস্কৃতি না হলেও পাশ্চাত্যের অধিবাসীরা এটাকে কিন্তু ঘৃণা করে না, বরং তাদের কেউ-কেউ এটিকে শ্রদ্ধা করে। সৎ গুণাবলীর প্রত্যেকটিই হল এক-একটি আদর্শ।

তাহলে আদর্শের সংজ্ঞা পাওয়া গেল। সকল আদর্শের একতা যেখানে, সত্যিকারের আদর্শ সেখানেই। অনেক বিধান অনেক বিধানকে সমর্থন করে না, কিন্তু সকল বিধানের মধ্যে কিছু বিধান এমন থাকে যা সকল বিধানের কাছেই মর্যাদার অধিকারী হয়। সকল বিধানের কাছে যে বিধান গ্রহণযোগ্য, সেটিই হল সত্যিকার অর্থে আদর্শ।

আদর্শ কী, তা তো বোঝা গেল। কিন্তু শুধু আদর্শ কী তা জানলে; তাকে ধারণ না করলে সমাজের মঙ্গল হবে না। এজন্য আদর্শকে ধারণ করতে হবে, হয়ে উঠতে হবে আদর্শবান; তোমার, আমার, সবার মঙ্গলের জন্যে।

কীভাবে আদর্শবান হওয়া যায়? আদর্শবান হয়ে উঠার জন্যে প্রয়োজন আদর্শের জন্য অনুকূল পরিবেশ। এটিই বর্তমানে নেই। কেন নেই?

কারণ সংস্কৃতি থেকে প্রায় সকলে দূরে সরে গিয়েছে। সংস্কৃতি ধর্মের পথেও যাওয়ার এক প্রধান পথ, সেই সংস্কৃতিই এখন কুলষিত, কামময়। টেলিভিশনে নাটকে, সিনেমায় নারী - পুরুষকে দেখানো হয় অশ্লীল রূপে, কখনো ক্যামেরায় দেহের নীচ থেকে ক্রমশ উপরের দিকে তুলতে-তুলতে। অর্থাৎ, সংস্কৃতির লক্ষ্য এখানে শান্তি আনা নয়, মানুষের মধ্যে কামকে তীক্ষ্ণ করা। হয়ত সিনেমার অনৈতিক দৃশ্য দেখে কিছু মানুষের কাম ক্ষুধা একেবারে শান্ত হয়ে যায়। কিন্তু অনেক নর - নারী সিনেমার অনৈতিক দৃশ্য দেখে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে, ব্যাকুল হয়ে উঠে অনৈতিকভাবে একে-অপরের সাথে মিলিত হতে। আদর্শবান হয়ে ওঠার অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টির জন্য সর্বপ্রথম সংস্কৃতিকে করতে হবে শুদ্ধ। বিশুদ্ধ সংস্কৃতিই পারবে আদর্শিক পরিবেশ সৃষ্টি করতে। তবে একা সংস্কৃতির দ্বারাই নয়, সব দিক থেকে চেষ্টা চালাতে হবে আদর্শিক পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্যে। ভক্তি, সংস্কৃতি, জপ - এগুলোকে বিশুদ্ধ করে এগুলোর চর্চায় মানুষদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে। যাদের কাছে এটি করার শক্তি আছে, তাদেরকে এগিয়ে আসতেই হবে শত প্রতিকূলতা থাকা স্বত্বেও। সবার প্রতি আহবান- আসুন, আমরা উপরোক্ত উপায়গুলোর মাধ্যমে নিজেরা আদর্শবান হয়ে উঠি, অন্যকেও আদর্শবান হয়ে উঠার পরিবেশ সৃষ্টি করে দেই। তবেই দশের, দেশের, বিশ্বের কল্যাণ হবে।
( সমাপ্ত )


Next Bangala Article

All Bengali Essay    ( 1 )     2     3    


## Disclaimer: RiyaButu.com is not responsible for any wrong facts presented in the Stories / Poems / Essay / Articles / Audios by the Writers. The opinion, facts, issues etc are fully personal to the respective Writers. RiyaButu.com is not responsibe for that. We are strongly against copyright violation. Also we do not support any kind of superstition / child marriage / violence / animal torture or any kind of addiction like smoking, alcohol etc. ##


◕ RiyaButu.com, এই Website টি সম্পর্কে আপনার কোনও মতামত কিংবা পরামর্শ, কিংবা প্রশ্ন থাকলে নির্দ্বিধায় আমাদের বলুন। যোগাযোগ:
E-mail: riyabutu.com@gmail.com / riyabutu5@gmail.com
Phone No: +91 8974870845
Whatsapp No: +91 7005246126