Home   |   About   |   Terms   |   Book Rent   |   Contact    
A platform for writers

বিবাহ বন্ধন

বাংলা গল্প

-------- বিজ্ঞপ্তি ----------
◕ প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা - সেপ্টেম্বর ২০২২, Details..
--------------------------



All Bengali Stories    149    150    151    152    (153)     154   

বিবাহ বন্ধন
লেখিকা - রিয়া পণ্ডিত, সাউথ তারা পুকুর, আগড়পাড়া , কলকাতা


## বিবাহ বন্ধন

লেখিকা - রিয়া পণ্ডিত, সাউথ তারা পুকুর, আগড়পাড়া , কলকাতা

#
আজ সকাল থেকেই রান্না ঘরের কাজে ব্যস্ত লাবণ্য, সাত্যকির পছন্দের সব খাবার তৈরি করছে নিজের হাতে। করবে নাই-বা কেন? আজ সাত্যকি - লাবণ্যের বিবাহের ৩ বছর পূর্ণ হতে চলেছে। সাত্যকি চৌধুরী কলকাতার এক কর্পোরেট অফিসে উচ্চ পদে কর্মরত। লাবণ্য রবীন্দ্রভারতী ইউনিভার্সিটিতে ইতিহাস বিভাগের প্রফেসর। ভালোবেসেই বিয়ে হয় তাদের, ছোটবেলার ভালোবাসার সম্পর্ক বিয়ের পরিণতি পেয়েছিল, দুজনেরই বসতবাড়ি মুর্শিদাবাদে, কিন্তু কর্ম সূত্রে কলকাতার এক ফ্ল্যাটে থাকতে হয় দম্পতিকে। প্রতি বছর আজকের দিনটাতে লাবণ্য নিজের হাতে রান্না করে সাত্যকির জন্য, লাবণ্যর হাতের মটন-কষা আর পোলাও সাত্যকির খুব প্রিয়। প্রতিদিন ব্যস্ততার কারণে লাবণ্যের সময় হয়ে ওঠে না রান্না করার। তবে আজকের দিনটা হাজার ব্যস্ততা সত্যেও ছুটি নিয়ে একসাথে সময় কাটায় দুজনে। কিন্তু এই বছর সাত্যকির অফিসে বিদেশি ক্লায়েন্টদের সাথে জরুরি মিটিং থাকায় ছুটি পায়নি সাত্যকি।। সন্ধ্যায় লাবণ্য একটা কালো রঙের জামদানি শাড়ির সাথে সোনালী রঙের স্লিপ-লেস ব্লাউজ পড়ে, যা সাত্যকির দেওয়া উপহার, সাথে খোঁপায় জুই ফুলের মালা। চোখে গাঢ় কাজল, ঠোঁটে ডিপ মেরুন লিপস্টিকের সাথে অসাধারণ মানিয়েছে লাবণ্যকে। লাবণ্য এমনি সুন্দর, খুব একটা সাজগোজের দরকার পরে না ওর। কিন্তু যখন সাজে, ওর সৌন্দর্য আরও দ্বিগুণ বেড়ে যায়। ড্রয়িং রুমটাকেও লাল রঙের বেলুন, গোলাপ ফুলের পাপড়ি দিয়ে খুব সুন্দর করে সাজিয়েছে সকাল থেকে নিজের হাতে। সাত্যকিকে এইবার সে সারপ্রাইজ দিতে চায়, কারণ প্রতিবার সারপ্রাইজটা সাত্যকি দেয় লাবণ্যকে।

ঘড়িতে দশটা বাজতে যায়, লাবণ্য আর থাকতে না পেরে ফোন করে সাত্যকিকে। এক ফাইব-স্টার হোটেলের টেবিলে রাখা ফোনটা দু-তিনবার ভাইব্রেট হয়ে কেটে গেল।

"ফোনটা বাজছে তো তখন থেকে রিসিভ করে নাও..." মেঘনা সাত্যকিকে নিজের কাছ থেকে সরিয়ে কথাটা বলল। সাত্যকি মেঘনাকে আর কিছু বলতে না দিয়ে কাছে টেনে নিয়ে মেঘনার নরম ঠোঁটে নিজের ঠোঁট ডুবিয়ে দিলো। মেঘনাকে আস্তে-আস্তে কোলে তুলে নিয়ে শুইয়ে দিলো বিছানায়। মেঘনাও দু'হাতে সাত্যকিকে কাছে টেনে নিলো। সাত্যকি মেঘনার কপালে চুমুর পরশ এঁকে দিলো, মেঘনা সাত্যকির বুকের ওপর মাথা রেখে চুপচাপ শুয়ে আছে। কিছুক্ষণ নীরব থাকার পর সাত্যকি বলল, "মেঘনা তুমি আমাকে কতটা ভালোবাসা?"

"হঠাৎ এই প্রশ্ন কেন?" মাথাটা সামান্য তুলে সাত্যকির দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করল মেঘনা।

"আহা! বলোই না!"

"কতটা জানি না, তবে ভালোবাসি," মেঘনা হালকা হেসে জবাব দিলো।

" আমাকে বিয়ে করবে মেঘনা?"

"কি বলছো এসব? তোমার তো বিয়ে হয়ে গেছে!" মেঘনা অবাক হয়ে প্রশ্ন করলো।

"সে আমি সব ঠিক করে দেবো.. তুমি বলো না, আমায় বিয়ে করবে?"

মেঘনা কিছুক্ষণ চুপ থাকার পর বলে উঠলো, " উফ: ছাড়তো এসব কথা, এসব কথা পরে হবে," বলে সাত্যকিকে জড়িয়ে ধরলো। ওদিকে অপেক্ষা করতে-করতে টেবিলের ওপর মাথা রেখে কথন ঘুমিয়ে পড়েছে নিজেও টের পায়নি লাবণ্য।

মেঘনা এখন মাউন্টেন বারে কাজ করে। সাত্যকির এক পুলিশ বন্ধু অভিজিৎ মেঘনাকে আগে থেকে চিনতো, সে-ই এই বারে কাজের সুযোগ করে দিয়েছিল। ছোট বয়সে বাবা মারা যাওয়ার পর গরিব অসুস্থ মা আর ছোট ভাইয়ের পড়াশোনার খরচ চালানোর জন্য মেঘনাকে এমন সব পথেই চলতে হয় সংসার চালানোর জন্য। সাত্যকি অভিজিৎ-এর সাথে একবার এই বারে এসেছিলো, তখনই মেঘনার সাথে ওর প্রথম আলাপ। সাহায্য থেকে শুরু হয়েছিল ওদের সম্পর্ক প্রায় এক বছর আগে। কিন্তু মেঘনার কষ্টগুলোর কথা শুনে-শুনে সাত্যকি মেঘনার প্রতি ক্রমশ দুর্বল হতে থাকে।

পরেরদিন সকালে কলিং বেলের আওয়াজে ঘুম ভেঙে যায় লাবণ্যর। ঘুম ঘুম চোখে দরজা খুলে দেখে কাজের মাসি এসেছে।

"বাবু আজকেও ফেরেন নি?" লাবণ্যকে ওই অবস্থায় দেখে জিজ্ঞেস করেন তিনি। লাবণ্য কোন উত্তর না দিয়ে বলে, "টেবিলটা পরিষ্কার করে নিয়ো আগে, আমি স্নান সেরে আসছি।"

আজ রবিবার, লাবণ্যর অফ ডে। বাড়িতে টুক - টাক কাজ কর্ম করে ফোনটা হাতে নিয়ে বিছানায় বসে। ফোনটা হাতে নিতেই দেখে সাত্যকির ম্যাসেজ, "সরি লাবণ্য, রিয়েলি সরি। কাল বাড়িতে আসতে পারিনি, হঠাৎ করে কাজ এসে যাওয়ায় কলকাতার বাইরে আসতে হয়েছে। আমি আজ রাতের মধ্যে বাড়ি পৌঁছে যাবো। তুমি সাবধানে থেকো।"

হঠাৎ করে লাবণ্যর সেই দিনের কথাটা মনে পড়ে গেলো যখন ও প্রথম সাত্যকির ফোনে মেঘনার ম্যাসেজ দেখতে পায়। হ্যাঁ ঠিকই শুনছেন, লাবণ্য সবটাই জানে সাত্যকির আর মেঘনার সম্পর্কের ব্যাপারে। তাও ও মুখ বন্ধ করে সবটাই মেনে নিয়েছে, শুধুমাত্র একটাই আশায় যে, সাত্যকি একদিন-না একদিন নিজের ভুল বুঝতে পেরে ঠিক ওর কাছে ফিরে আসবে। তবুও সব কিছু জেনে, না-জানার ভান করতে-করতে মাঝে-মধ্যে ভেঙে পরে সে।

খাটে মাথাটা ঠেকিয়ে হেলান দিয়ে বসে চোখ বন্ধ করে কানে হেডফোন লাগিয়ে নিজের পছন্দের এক বিদেশি গায়ক Harry Styles-এর গাওয়া Falling গানটা শুনতে থাকে। এটা ওর খুব প্রিয় গান,
"I'm in my bed and you're not here and there's no one to blame But the drink in my wandering hands. Forget what I said..."

গানটা শুনে লাবণ্যর চোখ থেকে ক্রমশ নিঃশব্দে জল গড়িয়ে পড়েছে।

রাত আটটা, লাবণ্য পরীক্ষার খাতা চেক করছে টেবিলে বসে। সাত্যকি ধীরে-ধীরে ঘরে ঢোকে লাবণ্যর চোখটা এক হাতে বন্ধ করে আর এক হাতে হিরের নেকলেসের বক্স লাবণ্যর সামনে ধরে। সাত্যকির হঠাৎ করে ছোঁয়ায় লাবণ্য সামান্য কেঁপে ওঠে। চোখ থেকে হাত সরাতেই লাবণ্য নেকলেসটি দেখতে পায়। বক্সটা হাতে নিয়ে উঠে দাড়িয়ে লাবণ্য হালকা হাসি মুখে সাত্যকির হাতে ওটা দিয়ে বলে, "এটা আমার লাগবে না গো।"

সাত্যকি লাবণ্যকে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে জিজ্ঞেস করে, "তুমি কি আমার ওপর রেগে আছো?"

"না না, রেগে থাকবো কেন? এতো দামি উপহারের আমার দরকার নেই, আমি তোমার কিছুটা সময় পেলেই খুশি। যদি আমায় কোনও দিন উপহার দিতে চাও, তোমার মূল্যবান সময়টা দিও। ওটাই আমার কাছে যথেষ্ট।"

লাবণ্যর কথা গুলো সাত্যকির বুকে গিয়ে কাঁটার মতো বিঁধতে থাকে। একটা অপরাধ বোধ কাজ করতে থাকে সাত্যকির মধ্যে। সাত্যকি কিছু না বলে ফ্রেশ হতে চলে যায় মাথা নিচু করে। শাওয়ারের নীচে দাঁড়িয়ে সাত্যকির মাথায় নানারকম চিন্তা ভাবনা ঘুরতে থাকে, "আমার কি লাবণ্যকে সবটা বলে দেওয়া উচিত? আর কতদিন এভাবে মাথা নিচু করে থাকবো? ও তো কোনও অন্যায় করেনি, ওকে এভাবে অন্ধকারে রাখা কি আমার উচিত? না না, আমি কালই আমার আর মেঘনার ব্যাপারে সবটা জানিয়ে দেবো। সময় এসেছে একটা পথ বেঁচে নেওয়ার, সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার।"

"কিগো, ডিনার রেডি। তাড়াতাড়ি আসো খাবারগুলো ঠাণ্ডা হয়ে যাবে।" বাথরুমে দরজায় নক করে বলে লাবণ্য।

"আসছি..."

ডিনার টেবিলে নীরবতা ভেঙে সাত্যকি হঠাৎ বলে ওঠে, "লাবণ্য, কাল তোমার ক্লাস শেষ হলে আমার সাথে দেখা করবে আমাদের পছন্দের ক্যাফেটেরিয়াতে?"

"হঠাৎ!!"

"তোমাকে কিছু বলার আছে।"

কথাটা শুনেই লাবণ্যর বুকের ভেতর মোচর দিয়ে ওঠে এটা ভেবে যে, "ও কি এমন কিছু বলবে যেটা আমি শুনতে চাই না?"

না চাইতেও মাথা নেড়ে লাবণ্য বলে, "আচ্ছা যাবো।"

সকাল থেকেই লাবণ্যর মনে একটা ভয় কাজ করছে, ক্লাস নিতেও অস্বস্তি বোধ হচ্ছিল তার। কোনভাবে ক্লাসগুলো শেষ করে ক্যাফের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় সে।

#
প্রচণ্ড রেগে গিয়ে ফোনটা আয়নায় ছুড়ে মারে সাত্যকি। মাটিতে বসে পড়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে থাকে অনবরত, "কেন করলে মেঘনা? এটা কেন করলে আমার সাথে?"

সাত্যকি গেছিলো মেঘনাকে হোটেল থেকে আনতে, ভেবেছিল মেঘনাকে সাথে নিয়ে দাঁড়াবে লাবণ্যর মুখোমুখি, সবটা খুলে বলে দেবে যে, ও না চাইতেই মেঘনাকে ভালোবেসে ফেলেছে। সবটা স্বীকার করে নেবে, মেঘনাকে সমাজের সামনে আপন করে নেবে। কিন্তু রুমে ঢুকে মেঘনাকে খুঁজে না পেয়ে বেরিয়ে যেতে গিয়ে দেখতে পায় টেবিলের ওপর একটা চিঠি রাখা। তাতে লেখা ছিল,
"সাত্যকি কাল তুমি আমার কাছে জানতে চেয়েছিলে আমি তোমায় বিয়ে করবো কি না? সত্যি কথা বলতে, আমি তোমাকে কোনদিন ভালোইবাসি নি। তুমি আমার জন্য অনেক কিছু করেছো, মায়ের অসুখের সব খরচ তুমি দিয়েছো। তার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আমি তোমার কাছে সেদিন পাঁচ লাখ টাকা চেয়েছিলাম মনে আছে? সেটাই তোমার কাছ থেকে শেষ উপকার চাওয়া ছিল। আমি দিল্লি চলে যাচ্ছি সারাজীবনের মতো। প্লিজ আমার সাথে কোনও যোগাযোগ করো না। আমাকে ক্ষমা করে দিও পারলে। ভালোবাসা, বিয়ের বন্ধনে আমি বিশ্বাস করি না। যদি সত্যিকারের ভালোবাসা আজও এই পৃথিবীতে থাকত তবে তুমি তোমার স্ত্রীকে ছেড়ে আমার কাছে আসতে না। পারলে নিজের ভুলগুলো শুধরে নিও..."

#
ক্যাফেটেরিয়াতে অনেকক্ষণ বসে থেকে লাবণ্য বাড়ি চলে গেলো, সাত্যকির ফোনটা ভেঙে যাওয়ায় ফোন করেও পায়নি তাকে। একদিকে যেমন হাঁপ ছেড়ে বাঁচল সে, অন্যদিকে সাত্যকির জন্য দুশ্চিন্তা ক্রমশ বাড়তে লাগল তার।

ব্যালকনিতে পায়চারি করছে লাবণ্য, হঠাৎ দরজা দিয়ে সাত্যকি প্রবেশ করলো।। উগ্র ভেঙে পড়া চেহারা দেখে সাত্যকির দিকে ছুটে গেল লাবণ্য, "একি কি হয়েছে তোমার?? কোথায় ছিলে এতক্ষণ? ফোন তুলছিলে না কেন?"

অনেকক্ষণ জিজ্ঞেস করার পর নিজেকে আর সামলাতে না পেরে ফুঁপিয়ে কেঁদে ওঠে সাত্যকি, "আমি তোমাকে ঠকিয়েছি লাবণ্য,ঠকিয়েছি তোমাকে। অনেক বড়ো ভুল করে ফেলেছি আমি, অপরাধী আমি তোমার। তাই সাহস পাচ্ছিলাম না তোমার সামনে আসার... কোন মুখ নিয়ে তোমার সামনে আসবো। আমি..."

সাত্যকির এই অসহায় অবস্থা দেখে লাবণ্য তাকে জড়িয়ে ধরে বলে, "প্লিজ কিছু বলো না, আমি জানি সবটা, সব জানি আমি। তুমি যদি বলো আমি তোমাদের মাঝখান থেকে সরে যাবো কথা দিচ্ছি।"

লাবণ্যকে নিজের কাছ থেকে সরিয়ে ওর চোখের দিকে অবাক হয়ে তাকিয়ে রইল সাত্যকি। বলল, "লাবণ্য..! তুমি সবটা জেনেও??"

লাবণ্য: "কি করবো বলো... তোমাকে বড্ড ভালোবাসি যে। তুমি তো জানো সেই ছোট থেকে আমি শুধু তোমাকে ভালোবেসে এসেছি। তুমি ছাড়া আর কোন পুরুষকে আমার জীবনে আসতে দিই নি। এত সহজে হাল ছেড়ে দিই কি করে?? কিন্তু তোমার খুশির জন্য আমি সব কিছু করতে রাজি।"

সাত্যকি লাবণ্যকে শক্ত করে আঁকড়ে ধরে নিঃশব্দে কাঁদতে থাকে, "আমাকে ক্ষমা করতে পারবে লাবণ্য?"

"আমি তোমার ওপর রেগে নেই একদম... রাগটা নিজের ওপর। আমিই হয়তো তোমায় সুখী করতে পারিনি..."

"না এতে তোমার কোনও ভুল নেই। সব দোষ আমার, আমিই তোমাকে কষ্ট দিয়ে ফেলেছি। মেঘনার কষ্টের কথা শুনে আমি দুর্বল হয়ে পড়েছিলাম ওর প্রতি, নিজের অজান্তেই ভুল পথে চলে গেছিলাম। আচ্ছা আমি যদি আবার ফিরতে চাই, সব ভুলে গিয়ে আমাকে আপন করে নেবে? নতুন করে সংসার শুরু করবে আমার সাথে?"

"হ্যাঁ! করবো। তুমি কথা দাও আমাকে ছেড়ে কোথাও যাবে না?"

সাত্যকি লাবণ্যর কপালে ভালোবাসার পরশ দিয়ে বলল, "না, আর কোনদিন কষ্ট দেবো না তোমায়। এভাবেই যতদিন বাঁচবো তোমার পাশে থাকবো কথা দিলাম।"

পুনশ্চ:
'বিবাহ বন্ধন' কথাটা সমাজের কিছু মানুষের জন্য আস্তে-আস্তে হারিয়ে যাচ্ছে। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে এই পরকীয়ার মোহে জালে আটকে পরছে। বিবাহ একটি খুবই পবিত্র বন্ধন। বিবাহের পর অন্য কারো সাথে সম্পর্কে জড়ানোর আগে একবার ভাবা উচিত, যার সাথে সাত জন্ম কাটানোর কথা দিয়েছি, পরকীয়ার মোহে জালে আটকে তাকে কতটা অপমান করা হবে! ভালোবাসা, বিবাহের অদৃশ্য বন্ধনগুলোকে আঁকড়ে থাকলে জীবনটা অনেক সুখের হবে।
( সমাপ্ত )


Next Bangla Story

All Bengali Stories    149    150    151    152    (153)     154   


## Disclaimer: RiyaButu.com is not responsible for any wrong facts presented in the Stories / Poems / Essay / Articles / Audios by the Writers. The opinion, facts, issues etc are fully personal to the respective Writers. RiyaButu.com is not responsibe for that. We are strongly against copyright violation. Also we do not support any kind of superstition / child marriage / violence / animal torture or any kind of addiction like smoking, alcohol etc. ##


◕ RiyaButu.com, এই Website টি সম্পর্কে আপনার কোনও মতামত কিংবা পরামর্শ, কিংবা প্রশ্ন থাকলে নির্দ্বিধায় আমাদের বলুন। যোগাযোগ:
E-mail: riyabutu.com@gmail.com / riyabutu5@gmail.com
Phone No: +91 8974870845
Whatsapp No: +91 6009890717